• মঙ্গলবার   ২৮ জুন ২০২২ ||

  • আষাঢ় ১৪ ১৪২৯

  • || ২৮ জ্বিলকদ ১৪৪৩

সর্বশেষ:
পদ্মাসেতু জাতীয় সম্পদ, বিরোধিতাকারীরা জাতির শত্রু: হাইকোর্ট নিজের ভাগ্য নয়, জনগণের ভাগ্য বদলই একমাত্র লক্ষ্য: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল নিষিদ্ধ যুক্তরাজ্যকে এক লাখ রোহিঙ্গা নিতে অনুরোধ বাংলাদেশের বিএনপির নেতিবাচক রাজনীতি পদ্মার গহীনে নিমজ্জিত: ওবায়দুল কাদের

দিনাজপুরে শেখ কামাল আইটি পার্কের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন

– কুড়িগ্রাম বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ৩১ মে ২০২২  

দিনাজপুরে শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং ও ইনকিউবেশন সেন্টারের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (৩১ মে) দুপুরে দিনাজপুর সরকারি কলেজ ক্যাম্পাস প্রাঙ্গণে এর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। এসময় জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম উপস্থিত ছিলেন।

এ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী পলক বলেন, দিনাজপুরে আইটি পার্ক চালু হলে প্রতিবছর ১ হাজার তরুণ-তরুণীর কর্মসংস্থান ও প্রতিবছর ৩ হাজারের বেশি তরুণ-তরুণীকে প্রশিক্ষণ দিতে সক্ষম হবো। তরুণ-তরুণীদের উচ্চশিক্ষার জন্য ঢাকা কিংবা বিদেশমুখী যাতে না হতে হয় তারা যেন দিনাজপুরে বসে আত্মকর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে পারেন সেটিই আমাদের লক্ষ্য।

তিনি বলেন, ১৩ বছরে আমাদের ডিজিটাল বাংলাদেশের কল্যাণে শহর ও গ্রামের দূরত্ব কমিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বাংলাদেশের ধনী ও দরিদ্রদের বৈষম্য দূর করেছেন। ইউনিয়ন ডিজিটাল সেবা প্রতিষ্ঠা করে মানুষের দোরগোড়ায় সেবা পৌঁছে দিয়েছেন। পাশাপাশি কর্মসংস্থান হয়েছে ২০ লাখ তরুণ-তরুণীর।

পলক বলেন, দিনাজপুরের তরুণ প্রজন্মের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আইটি পার্ক উপহার হিসেবে দিয়েছেন। আমাদের প্রতিবছর ২০ লাখ তরুণ-তরুণী কর্মজীবনে প্রবেশ করছে। বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে পড়ালেখা সম্পন্ন করে তারা যখন কর্মজীবনে প্রবেশ করছে তাদের প্রত্যেককে আমরা চাকরি দিতে পারছি না। সরকারি ও বেসরকারি খাতে খুব কমসংখ্যক তরুণ-তরুণীকে আমরা চাকরি দিতে পারছি। কিন্তু লাখ লাখ তরুণ-তরুণী যারা কর্মজীবনে প্রবেশ করছে তারা যাতে নিজেদের কর্মসংস্থান নিজেরাই করতে পারে সেজন্য দেশের ৬৪ জেলায় আইটি পার্ক তৈরি করা হচ্ছে। সেখান থেকে তারা ফ্রিল্যান্সিংয়ের ট্রেনিং নিয়ে নিজেরা ঘরে বসে উপার্জন করতে পারে বা উদ্যোক্তা হতে পারে সেই ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, আমাদের দিনাজপুরের হাজার হাজার আইটি ফ্রিল্যান্সার লাখ লাখ ডলার আয় করছে। এই মুহূর্তে বাংলাদেশের শতভাগ বাড়ি বিদ্যুতের আওতায় এসেছে এবং উচ্চগতির ইন্টারনেট আমাদের জেলা এবং উপজেলায় এমনকি সাড়ে ৪ হাজার ইউনিয়ন পর্যন্ত পৌঁছে গেছে। আমাদের প্রযুক্তিনির্ভর কর্মসংস্থানের জন্য দুটি জিনিস প্রয়োজন, সেটা হচ্ছে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ ও উচ্চগতির ইন্টারনেট। এই দুটি সেবা আমরা গ্রামে গ্রামে পৌঁছে দেওয়ার ফলে এখন দেশের যে কোনো প্রান্তের তরুণ-তরণীরা অনলাইন মার্কেট প্লেসে কাজ করতে পারছেন।

আইসিটি প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, আমাদের বর্তমানে আইটি সেক্টর থেকে রপ্তানি আয় ১ দশমিক ৪ বিলিয়ন ডলার তা বৃদ্ধি করে ৫ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত করতে চাই। আমাদের বর্তমান তরুণ-তরুণীদের স্মার্ট ও দক্ষ নাগরিক হিসেবে তৈরি করার জন্য আগামীতে দেশের চালিকাশক্তি হবে শেখ কামাল আইটি পার্ক।

– কুড়িগ্রাম বার্তা নিউজ ডেস্ক –