ব্রেকিং:
বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় বুয়েটের বহিষ্কৃত ২০  শিক্ষার্থীর মৃত্যুদণ্ড ৫ জনের যাবজ্জীবনের আদেশ দিয়েছেন আদালত
  • বৃহস্পতিবার   ০৯ ডিসেম্বর ২০২১ ||

  • অগ্রাহায়ণ ২৪ ১৪২৮

  • || ০৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

সর্বশেষ:
পঞ্চগড়ে একসাথে তিন সন্তানের জন্ম দিলেন দরিদ্র মা ঢাকা-দিল্লি সম্পর্ক আরও এগিয়ে নিতে জোর দুই পররাষ্ট্র সচিবের জলঢাকায় ছোট বোনকে বাঁচাতে গিয়ে বড় বোনের মৃত্যু কোভিড চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টা দরকার: প্রধানমন্ত্রী বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার হত্যায় ২০ মৃত্যুদণ্ড, যাবজ্জীবন ৫

জিডিপিতে নতুন খাত হিসেবে মর্যাদা পেয়েছে লটকন, ড্রাগন ও স্ট্রবেরি

– কুড়িগ্রাম বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১৪ নভেম্বর ২০২১  

বাণিজ্যিকভাবে গরু ও হাঁস-মুরগি পালন ও মাংস উৎপাদন এবং নার্সারি ব্যবসায়ের বিকাশ ঘটার কারণে এগুলো জিডিপিতে নতুন খাত হিসেবে মর্যাদা পেয়েছে। কৃষি খাতেও এখন লটকন, ড্রাগন ও স্ট্রবেরি ফল এবং ক্যাপসিকাম, মাশরুম ইত্যাদি নতুন নতুন সবজির বাণিজ্যিক আবাদ বৃদ্ধি পাওয়ায় জিডিপির নতুন ভিত্তিবছরে যুক্ত করা হয়েছে।

মোট দেশজ উৎপাদন বা জিডিপির ভিত্তি বছর পরিবর্তন করেছে সরকার। এখন থেকে ২০১৫-১৬ অর্থবছরকে নতুন ভিত্তি বছর ধরে জিডিপিসহ অর্থনীতির সব হিসাব-নিকাশ প্রকাশ করবে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস)।

এতদিন সেই ১৫ বছর আগের ২০০৫-০৬ অর্থবছরকে ভিত্তি বছর ধরে এ সব তথ্য প্রকাশ করা হতো।

বাণিজ্যিকভাবে গরু ও হাঁস-মুরগি পালন ও মাংস উৎপাদন এবং নার্সারি ব্যবসায়ের বিকাশ ঘটার কারণে এগুলো জিডিপিতে নতুন খাত হিসেবে মর্যাদা পেয়েছে। কৃষি খাতেও এখন লটকন, ড্রাগন ও স্ট্রবেরি ফল এবং ক্যাপসিকাম, মাশরুম ইত্যাদি নতুন নতুন সবজির বাণিজ্যিক আবাদ বৃদ্ধি পাওয়ায় জিডিপির নতুন ভিত্তিবছরে যুক্ত করা হয়েছে।

মোবাইল ব্যাংকিং সেবাকে জিডিপির গণনায় নতুন খাত হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এমন আরও কয়েকটি খাত জিডিপির নতুন ২০১৫-১৬ ভিত্তিবছরে যুক্ত করেছে বিবিএস।

প্রতিনিয়ত অর্থনীতির রূপ বদল হয়, শুরু হয় নতুন নতুন অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড। কিছু কিছু হারিয়ে যায়। তাই এক দশক পরপর জিডিপির ভিত্তিবছর পরিবর্তন করার কথা ছিল, যাতে নতুন ভিত্তি বছর দিয়ে অর্থনীতি আরও বেশি নিখুঁতভাবে গণনা করা যায়, প্রকৃত তথ্য উঠে আসে। কিন্তু কোনো বারই নির্ধারিত সময়ে ভিত্তি বছর পরিবর্তন করা হয়নি। এবার ১৫ বছর পর পরিবর্তন করা হলো।

২০১৫-১৬ অর্থবছরকে নতুন ভিত্তি বছর নির্ধারণ করায় সাম্প্রতিক বছরগুলোর জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার কিছুটা কমে গেলেও সার্বিক বিবেচনায় অর্থনীতির আকার বেশ বেড়েছে; বেড়ে গেছে বাংলাদেশের মানুষের মাথাপিছু আয়।

নতুন ভিত্তি বছর অনুযায়ী, চলতি মূল্যে গত ২০২০-২০২১ অর্থবছরে বাংলাদেশের অর্থনীতির আকার (জিডিপি) দাঁড়িয়েছে ৪০৯ বিলিয়ন ডলার। বর্তমান বিনিময় হার হিসাবে (প্রতি ডলার ৮৫ টাকা ৭০ পয়সা) টাকার অঙ্কে এই অর্থের পরিমাণ ৩৫ লাখ ৯ হাজার ২২০ কোটি টাকা।

বিবিএস প্রতি ডলার ৮৫ টাকা ধরে হিসাব কষে বলছে, বাংলাদেশের অর্থনীতির আকার এখন ৩৪ লাখ ৭৬ হাজার ৫০০ কোটি টাকা, যা আগের ভিত্তি বছরের (২০০৫-০৬) হিসাবে পাওয়া ৩০ লাখ ১১ হাজার ১০০ টাকার চেয়ে ১৫ দশমিক ৭ শতাংশ বেশি।
নতুন ভিত্তি বছরের (২০১৫-১৬) হিসাবে গত ২০২০২১ অর্থবছরে বাংলাদেশের মানুষের মাথাপিছু আয় বেড়ে হয়েছে ২ হাজার ৫৫৪ ডলার, পুরনো ভিত্তি বছরের হিসাবে যা ছিল ২ হাজার ২২৭ ডলার।

পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী শামসুল আলম বলেন, ‘অনেক দেরিতে হলেও আমরা নতুন ভিত্তি বছর শুরু করেছি। এখন থেকে জিডিপি, মূল্যস্ফীতি, মাথাপিছু আয়সহ অর্থনীতির সব সূচক ২০১৫-১৬ অর্থবছরকে ভিত্তি বছর ধরে হিসাব করা হবে এবং আমরা এখন থেকে পাঁচ বছর পর পর ভিত্তি বছর পরিবর্তন করব।’

তিনি বলেন, ‘আরও আগেই নতুন ভিত্তি বছর নির্ধারণ করা উচিত ছিল। কিন্তু আমরা সেটা পারিনি; এটাকে আমাদের এক ধরনের ব্যর্থতাও বলতে পারেন। অনেক পেছনের ভিত্তি বছরকে ভিত্তি ধরে হিসাব করলে অর্থনীতির বর্তমান অবস্থার বাস্তব প্রতিফলন পাওয়া যায় না।

‘এই ১৫ বছরে অনেক নতুন নতুন খাত আমাদের অর্থনীতির মূলধারায় যুক্ত হয়েছে, ভালো অবদান রাখছে। সে কারণেই এখন আমরা পাঁচ বছর পর পর ভিত্তি বছর পরিবর্তন করব।’

পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘এখন থেকে জিডিপিসহ অর্থনীতির অন্যান্য সূচকের তথ্য নতুন ভিত্তি বছরের পাশপাশি পুরনো ভিত্তি বছরেরটাও প্রকাশ করা হবে। কিছুদিন পর শুধুমাত্র নতুন ভিত্তি বছরেরটা প্রকাশ করা হবে। পুরনোটা আর প্রকাশ করা হবে না।’

অর্থনীতির বিশ্লেষক বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) গবেষক জায়েদ বখতও নতুন ভিত্তি বছর নির্বাচনের বিষয়টিকে সাধুবাদ জানান।

তিনি বলেন, ‘জিডিপি ও এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলোকে সময় মতো সংশোধন করা হলে তা জাতীয় সূচকের পূর্বাভাসের গ্রহণযোগ্যতা এবং অন্যান্য দেশের সঙ্গে তুলনা করার ক্ষেত্রে উপযোগিতা নিশ্চিত করে।’

তিনি বলেন, ‘যদিও নতুন ভিত্তি বছর শুরু করায় আগের কয়েক বছরের জিডিপি প্রবৃদ্ধি কিছুটা কমে গেছে, তবুও এটি অর্থনীতির বাস্তব চিত্র প্রকাশ করছে। বাস্তব পরিস্থিতি সম্পর্কে জানতে পারলে তা সরকারকে নীতিনির্ধারণী সিদ্ধান্ত নিতে আরও সহায়তা করবে।

‘তথ্যের উৎসের উন্নয়ন হলে অর্থনৈতিক কার্যক্রমের ব্যপ্তি বাড়ে, কারণ নতুন মানদণ্ড অর্থনীতিতে বর্ধনশীল শিল্পের অবদানের আরও সঠিক প্রতিফলন নিশ্চিত করে।

‘জিডিপি গণনায় অর্থনীতির নতুন নতুন উদীয়মান খাত অন্তর্ভুক্ত না করলে গতি-প্রকৃতি বোঝা যায় না।’

মোবাইল ব্যাংকিং সেবাকে জিডিপিতে যুক্ত করার কারণ ব্যাখা করে পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী শামসুল আলম বলেন, ‘এক সময় যেখানে এ দেশের কোটি কোটি গরিব মানুষের কোনো ব্যাংকের ত্রিসীমানায় যাওয়ার সুযোগ ছিল না, সেখানে তারা এখন ঘরে বসেই সহজে মোবাইল ফোনের এক ক্লিকে টাকা পাঠিয়ে ব্যাংকিংয়ের মতো লেনদেন করছেন। বিকাশ, নগদ, রকেট, ইউপেসহ এ রকম আরও অনেক প্রতিষ্ঠান এই সেবা দিচ্ছে। অর্থাৎ টাকা লেনদেনের জন্য মোবাইল ব্যাংকিং এখন বেশ জনপ্রিয় ও সহজলভ্য মাধ্যম।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের অর্থনীতিতে বিপ্লব এনেছে মোবাইল লেনদেন। হাজার হাজার কোটি টাকা লেনদেন হচ্ছে এর মাধ্যমে। সে কারণেই এটাকে জিডিপির হিসাবে যুক্ত করা হয়েছে।’

এমন আরও কয়েকটি খাত, যেগুলো অর্থনীতিতে ভালো অবদান রাখছে, সেগুলোকেও জিডিপিতে যুক্ত করা হয়েছে বলে জানান শামসুল আলম।

এক যুগ আগেও এ দেশে মোবাইল ব্যাংকিং ছিল না। কিন্তু এখন তা মানুষের প্রাত্যহিক জীবনের অংশ হয়ে গেছে। ২০১০ সালে ডাচ-বাংলা ব্যাংক প্রথমবারের মতো মোবাইল ব্যাংকিং সেবা চালু করে, যা দ্রুত বিস্তার লাভ করে। মোবাইল ব্যাংকিং তথা মোবাইলে আর্থিক সেবার (এমএফএস) মাধ্যমে বর্তমানে দৈনিক গড়ে আড়াই হাজার কোটি টাকার লেনদেন হয়। মোবাইল ব্যাংকিংয়ের গ্রাহক এখন ৭ কোটির বেশি। এই খাতে নতুন নতুন কর্মসংস্থান হচ্ছে। ফলে অর্থনীতিতে বড় অবদান রাখছে খাতটি। অথচ জিডিপি গণনায় ২০০৫-০৬ ভিত্তিবছরে মোবাইল ব্যাংক খাতটি ছিল না। তাই নতুন ভিত্তিবছরে (২০১৫-১৬) তা যোগ করেছে পরিসংখ্যান ব্যুরো।

মোবাইল ব্যাংকিং সেবার মতো এজেন্ট ব্যাংকের যাত্রাও শুরু হয় এক দশক আগে। তাই আগে এজেন্ট ব্যাংকিং অর্থনীতিতে কী পরিমাণ অবদান রাখছে, তা জিডিপি গণনায় নিখুঁতভাবে আসত না। এবার এজেন্ট ব্যাংকও যুক্ত হয়েছে। দেশে ১৪ হাজার এজেন্ট ব্যাংক আছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ হিসাবমতে, এজেন্ট ব্যাংকে আমানতের স্থিতি ২০ হাজার ৩৭৯ কোটি টাকা।

বাণিজ্যিকভাবে গরু ও হাঁস-মুরগি পালন ও মাংস উৎপাদন এবং নার্সারি ব্যবসায়ের বিকাশ ঘটায় এগুলো জিডিপিতে নতুন খাত হিসেবে মর্যাদা পেয়েছে। কৃষি খাতেও এখন লটকন, ড্রাগন ও স্ট্রবেরি ফল এবং ক্যাপসিকাম, মাশরুম ইত্যাদি নতুন নতুন সবজির বাণিজ্যিক আবাদ বৃদ্ধি পাওয়ায় জিডিপির নতুন ভিত্তিবছরে যুক্ত করা হয়েছে।

জিডিপি আরও বেশি নিখুঁতভাবে গণনায় কেব্‌ল টেলিভিশন, ইন্টারনেট ব্যবসাসহ নতুন কয়েকটি খাতকে যুক্ত করা হয়েছে। এ ছাড়া হেলিকপ্টার সেবাও যুক্ত হয়েছে জিডিপিতে।

– কুড়িগ্রাম বার্তা নিউজ ডেস্ক –