• বুধবার   ২৫ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১১ ১৪২৯

  • || ২৩ শাওয়াল ১৪৪৩

সর্বশেষ:
জাতীয় কবি কাজী নজরুলের ১২৩তম জন্মজয়ন্তী আজ সারাদেশে তাপমাত্রা কমতে পারে দেশীয় পণ্য নিশ্চিত করতে শুল্ক বসল দুই শতাধিক পণ্যে ভোটার তালিকা হালনাগাদে শিক্ষকদের সহায়তা করার নির্দেশ নজরুলের সৃজনশীল কর্ম বিশ্ব সাহিত্যেও বিরল

কুড়িগ্রামে ঈদ উদযাপনে এলাাকার ঐতিহ্য হাত মেশিনের সেমাই

– কুড়িগ্রাম বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ৩ মে ২০২২  

বাপ-দাদার ঐতিহ্য ধারণ করেই যুগযুগ ধরে আটা পানির সমন্বয়ে তৈরি হাত সেমাইয়ের ব্যবহার অব্যাহত রেখেছে কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলা সদরের চেয়ারম্যান পাড়া এলাকাবাসী। পবীত্র ঈদুল ফিতর কাছে এলেই এখানকার মানুষরা ঈদ উদযাপনে এলাাকার ঐতিহ্য হিসেবে হাত মেশিনের সেমাই তৈরিতে ব্যস্ত সময় পাড় করেন। রোদপূর্ণ আবহাওয়া থাকলে এখানে দেখা যায় নারী-পুরুষ, শিশু-কিশোরদের মাঝে সেমাই তৈরির কর্মব্যস্ততা।

ভারত থেকে কিনে আনা লোহা পিতলের তৈরি সেমাই তৈরির একটি ছোট্ট মেশিনের সাহায্যে এলাকাবাসী হ্যান্ডেল ঘুরিয়ে এ সেমাই তৈরি করে থাকেন। ছোট্ট চিকন ছিদ্র করা জালি দিয়ে বের হওয়া আটা-পনির সমন্বয়ে সেমাই গুলো রোদে শুকিয়ে তৈরি করা হয় পূর্ণাঙ্গ হাত সেমাই।

ছোট্ট মেশিনের হ্যান্ডেল ঘুরিয়ে সেমাই তৈরি করার কারনে এ সেমাই হাত সেমাই হিসেবেই এলাকায় পরিচিত। হাত সেমাইয়ের মেশিনটি সবার বাড়িতে না থাকলেও এলাকার শতশত মানুষের চাহিদা মিটাচ্ছেন স্থানীয় আব্দুল হামিদ, মোসরেম উদ্দিন ও আব্দুল গফ্ফার টুকু। এই তিন ব্যক্তি ভারত থেকে হাত মেশিনগুলো কিনে আনার সুবাদে এখানে দীর্ঘদিন ধরেই এই হাত মেশিনের সেমাই ব্যবহার হচ্ছে। এই ৩ ব্যক্তি প্রতি রমজানে মেশিন গুলো ব্যবহারের জন্য এলাকাবাসীর হাতে তুলে দেন।

প্রতিবছরের মতো এবারো চেয়ারম্যান পাড়ায় ঈদুল ফিতরের শেষ মূহুর্তে ধুম পড়েছে হাত মেশিনে সেমাই তৈরির। এখানে হাত সেমাই তৈরিতে এলাকার একে অপরের জন্য সহযোগিতায় এগিয়ে আসেন। সেমাই তৈরির সময় সুন্দর একটি সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশের দেখা যায় এখানে।

স্থানীয় শিক্ষার্থী তন্বী আক্তার জানান, পবিত্র ঈদুল ফিতর আসলে রমজানে আমাদের এলাকায় হাত মেশিনে সেমাই তৈরির ধুম পড়ে। এটি আমাদের এলাকার ঐতিহ্য। এ সেমাই তৈরিতে আমরা একে অপরের সাহায্যে এগিয়ে আসি।

স্থানীয় গৃহবধূ ছামিনা বেগম জানান, পবিত্র ঈদুল ফিতর আসলে আমরা এলাকাবাসী হাত সেমাই তেরি করে থাকি। বাড়িতে কেনা সেমাই লাচ্ছা যতই থাকুক না কেন আমাদের হাত সেমাই থাকতে হবে। আমাদের এলাকার মতো অন্য কোথাও এমন হয় না।

স্থানীয় যুবক নিরাশা মিয়া জানান, আমাদের এলাকার ঐতিহ্য হাত সেমাই দিয়েই আমরা ঈদুল ফিতর উদযাপন করে থাকি। বাজারের সেমাই লাচ্ছা তৈরি হয় তেল দিয়ে, দামও চড়া। তেলের কারণে এ সেমাই খেলে পেট খারাপ হতে পারে। কিন্তু হাত সেমাইয়ে তা হয় না। এটি স্বাস্থ্য সম্মত সেমাই।

এলাকার ফজলুল হক বাতাসু জানান, আমাদের এলাকার একটি ঐতিহ্য হচ্ছে এই হাত সেমাই। তিনি বাপ-দাদার এই ঐতিহ্য ৫০ বছরেরও বেশি সময় ধরে পালন করছেন। আটা-পানির সমন্বয়ে এই হাত সেমাইয়ের স্বাদ বাজারের অন্যান্য সেমাই লাচ্ছার চেয়ে অতুলিনীয় বলে জানান তিনি।

স্থানীয় হাত মেশিনের মালিক মোসলেম উদ্দিন জানান, আমাদের এলাকায় প্রতি ঈদুল ফিতরে হাত মেশিনের সেমাইয়ের ব্যবহার হওয়ায় বিগত কয়েক বছর আগে ভারতের দিল্লী থেকে একটি সেমাইয়ের হাত মেশিন কিনে আনি।

তিনি আরো জানান, এই মেশিনটিতে আমার পরিমাণ মতো সেমাই তৈরির পর দীর্ঘদিন ধরে এলাাকাবাসীকে সেমাই তৈরি করতে দেই। এলাকাবাসী তাদের চাহিদা মতো সেমাই তৈরি করার পর আমাকে আবার মেশিনটি ফেরত দেন। এতে আমাকে ভালো লাগে।

– কুড়িগ্রাম বার্তা নিউজ ডেস্ক –