• বুধবার   ২৫ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১১ ১৪২৯

  • || ২৩ শাওয়াল ১৪৪৩

সর্বশেষ:
জাতীয় কবি কাজী নজরুলের ১২৩তম জন্মজয়ন্তী আজ সারাদেশে তাপমাত্রা কমতে পারে দেশীয় পণ্য নিশ্চিত করতে শুল্ক বসল দুই শতাধিক পণ্যে ভোটার তালিকা হালনাগাদে শিক্ষকদের সহায়তা করার নির্দেশ নজরুলের সৃজনশীল কর্ম বিশ্ব সাহিত্যেও বিরল

কুড়িগ্রামে জ্ঞানের আলো ছড়াচ্ছে গীতিকার তৌহিদের পাঠাগার 

– কুড়িগ্রাম বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১৯ এপ্রিল ২০২২  

  
পড়িলে বই আলোকিত হই—এই প্রতিপাদ্যকে ধারণ করে ব্যক্তিগত উদ্যোগে অজপাড়া গাঁয়ে পাঠাগার স্থাপন করেছেন গীতিকার তৌহিদ উল ইসলাম। এই পাঠাগার হাজারো জ্ঞান-পিপাসু মানুষের মাঝে আলো ছড়াচ্ছে। 

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলা সদর থেকে চার কিলোমিটার দক্ষিণে বড়ভিটা ইউনিয়নের খেজুরের তল নামক স্থানে রাস্তার বা পাশে পাঠাগারটির অবস্থান। সৃজনশীল জাতি গঠনে পাঠাগারের ভূমিকা অনস্বীকার্য ভেবে গীতিকার তৌহিদ নিজের দুই শতক জমিতে গড়ে তোলেন পাঠাগারটি।

এই পাঠাগারে রয়েছে বিভিন্ন লেখকের দুই হাজারেরও বেশি বই। পাঠাগারে বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযোদ্ধা কর্নার, নজরুল কর্নার, অভিধান ও ধর্ম কর্নার, ছোটদের জন্য রয়েছে বিভিন্ন গল্প, উপন্যাস ও ছড়ার বই। প্রতিনিয়ত পাঠাগারে আসেন ভিন্ন এলাকার স্কুল-কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থী। রেজিস্ট্রার খাতায় এন্ট্রির মাধ্যমে পাঠাগার থেকে বই বাড়িতে নিয়ে গিয়ে পড়ারও সুযোগ রয়েছে।

পাঠাগারে বই পড়তে আসা আশিক, মনি ও রিনা জানায়, আমাদের স্কুল যখন বন্ধ হয়, তখন আমরা এখানে এসে বিভিন্ন ধরনের বই পড়ে জ্ঞান অর্জন করি। এছাড়া এখানে রেজিস্ট্রার খাতায় এন্ট্রি করে বিভিন্ন ধরনের বই বাড়িয়ে নিয়ে গিয়ে পড়ি।

শিক্ষার্থী নবিউল ইসলাম বলে, আমরা বিদ্যালয়ের পাঠ্যপুস্তকের পাশাপাশি অবসরে বিভিন্ন ধরনের বই পড়ে নিজেকে সমৃদ্ধ করতে পারছি।
পাঠাগারের সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ নূর মোহাম্মদ মিয়া বলেন, পাঠাগার আলোর পথের নীরব পথপ্রদর্শক। স্কুল-কলেজের অনেক শিক্ষার্থী পাঠাগার থেকে বাড়িতে বই পড়ার জন্য নিয়ে যায়। বই বাড়িতে নেওয়ার জন্য তাদের কাছ থেকে কোনো ধরনের ফি নেওয়া হয় না। কেননা এতে ওরা নিরুৎসাহী হতে পারে। ওদেরকে উৎসাহ দেওয়ার জন্য প্রতি বছর শ্রেষ্ঠ পাঠকের পুরস্কার দেওয়া হয়।

পাঠাগারের প্রতিষ্ঠাতা গীতিকার তৌহিদ-উল ইসলাম বলেন, পাঠাগারের গুরুত্ব অপরিসীম। জ্ঞান অর্জন ও মাদকমুক্ত সমাজ গঠনের লক্ষ্যে আমি প্রথমে শাহবাজার রংধনু পাঠাগার স্থাপন করি। এর কিছু দিন পর আমি বাড়ির পাশে আমার নামে গীতিকার তৌহিদ উল ইসলাম পাঠাগারটি স্থাপন করি। সব বয়সী ছেলেমেয়েরা এখানে এবং বই নিয়ে বাড়িতে পড়াশোনা করার সুবিধা পাচ্ছে। এটাই আমার কাছে সবচেয়ে আনন্দের ব্যাপার।

###ঢাকা পোস্ট

– কুড়িগ্রাম বার্তা নিউজ ডেস্ক –